পরিচর্যাকারীর নিজের যত্ন - Alzheimer Society of Bangladesh

Dementia Help Line

Cell No: +8801720 498197
Cell No: +8801857 601061

Email:- info@alzheimerbd.com

পরিচর্যাকারীর নিজের যত্ন

পরিবারঃ

কিছু কিছু পরিচর্যাকারীর জন্য তাদের নিজ পরিবার তাদের সাহায্যে প্রধান উৎস হতে পারে। আবার কিছু কিছু পরিচর্যাকারীদের কাছে তাদের পরিবার তাদের কাছে চরম যন্ত্রণার কারণ হতে পারে। আপনার জন্য পরিবারের সাহায্য গ্রহণ খুবই প্রয়োজন যদি তারা তাদের সাহায্যের হাত প্রসারিত করতে ইচ্ছুক থাকে যাতে করে পরিচর্যার পুরো দায়িত্ব আপনাকে বহন করতে না হয়। যদি আপনার কষ্ট লাঘবের জন্য আপনার পরিবারের কেউ সাহায্য না করে অথবা এটা আপনার জন্য অসহ্যকর হয়ে পড়ে তাহলে তাঁর পরিবারের সকল সদস্যদের নিয়ে ঐ ব্যক্তির পরিচর্যার বিষয়ে মিটিং ডাকা আপনার জন্য সহায়তা এনে দিতে পারে। ফলে ডিমেনশিয়া সম্বন্ধে আপনি এবং আপনার পরিবার একটি সুস্পষ্ট ধারণা লাভ করতে পারেন।

আপনার সমস্যাগুলো ভাগ করুনঃ

আপনার যত্নের অভিজ্ঞতাগুলো অন্যের সাথে আলোচনা করুন। এসব জিনিস যদি আপনি নিজের ভিতর রাখেন তাহলে ডিমেনশিয়া আক্রান্ত ব্যক্তিকে যত্ন নিতে আপনার খুব কঠিন হবে। আপনি যদি উপলব্ধি করেন যে সকল অভিজ্ঞতা আপনি অর্জন করছেন তা স্বাভাবিক কারণে হচ্ছে তাহলে এটা মোকাবেলা করতে আপনার জন্য খুব অসুবিধা হবে। যারা সাহায্য করতে চায় তাদের সাহায্য গ্রহণের চেষ্টা করুন যদিও আপনি বুঝতে পারেন যে আপনি তাদের অসুবিধা সৃষ্টি করছেন। অগ্রিম অনুধাবন করতে চেষ্টা করুন এবং এমন কাউকে হাতে রাখুন যিনি যে কোন জরুরী পরিস্থিতিতে আপনার পাশে এসে দাঁড়াবেন।

নিজের জন্য সময় বেছে নিনঃ  

নিজের জন্য সময় বের করা খুবই দরকার। এর ফলে আপনি অন্যের সাথে সময় ব্যয় করতে পারবেন, আপনার প্রিয় শখ উপভোগ করতে পারবেন এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো যে আপনি নিজেই আনন্দ উপভোগ করতে পারবেন। যদি পরিচর্যা কাজে আপনার দীর্ঘ সময় ব্যয় হয় তাহলে অপর কোন ব্যক্তিকে আক্রান্ত ব্যক্তির দেখাশুনা করার ভার দিতে পারেন। এর ফলে আপনি বিশ্রাম নিতে পারবেন।

আপনার সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে অবগত থাকুনঃ

চাপ খুব বেড়ে যাবার আগেই আপনি কতটা সামাল দিতে পারবেন তা ঠিক করে ফেলুন। যখন পরিচর্যা খুবই প্রয়োজন অথচ আপনি আর পারছেন না, এমনটি ঘটার আগেই বেশিরভাগ মানুষ অনুধাবন করতে পারেন সেই সীমাটা। যদি আপনার অবস্থা এতটাই শোচনীয় হয়ে যায় যে আর মোটেই পারছেন না তাহলে বরং একটি দুর্ঘটনা প্রতিরোধ বা এড়ানোর স্বার্থে সেই অচলাবস্থা নিরসনের জন্য অন্যের সাহায্য নেবার উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।

নিজেকে দায়ী করবেন নাঃ

আপনি যেসব সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন তার জন্য নিজেকে বা ডিমেনশিয়া আক্রান্ত ব্যক্তিকে দায়ী করবেন না। মনে রাখবেন এসব সমস্যা রোগের কারণে ঘটছে। আপনি যদি মনে করেন আপনার বন্ধু-বান্ধব এবং আত্মীয়-স্বজনের সাথে আপনার সম্পর্ক কমে যাচ্ছে তাহলে তাদেরকে বা নিজেকে এর জন্য দায়ী করবেন না। কি কারণে এসব সমস্যা হচ্ছে তা উদঘাটন করার চেষ্টা করুন এবং তাদের সাথে আলোচনা করুন। মনে রাখবেন অন্যের সাথে সম্পর্কটা আপনার কাছে একটি মূল্যবান সাহায্যের উৎস হতে পারে। এটা আপনার কাছে এবং ডিমেনশিয়া আক্রান্ত ব্যক্তির কাছে একটি সম্পদ হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে।

উপদেশ দিন ও উপদেশ নিনঃ

আপনার পরিবর্তনশীল ভূমিকার জন্য আপনাকে অপরের সাহায্য নিতে হতে পারে। কিংবা ডিমেনশিয়া আক্রান্ত ব্যক্তির মধ্যে কোন পরিবর্তন ঘটলে আপনাকে অন্যের সাহায্য নিতে হতে পারে।

মনে রাখবেন আপনার গুরুত্ব খুবই অপরিসীমঃ

আপনি আপনার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ডিমেনশিয়া আক্রান্ত ব্যক্তির জীবনে রক্ষার ক্ষেত্রে আপনার গুরুত্ব খুবই অপরিসীম। আপনি না থাকলে ডিমেনশিয়া আক্রান্ত ব্যক্তির জীবন ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। এটা আর একটি যুক্তি যে জন্য আপনার নিজের স্বাস্থ্য বিষয়ে যত্ন নেয়াটা এত বেশি দরকার।